Friday , September 24 2021
Home / শিক্ষাঙ্গন / বেকার ছেলেকে বিয়ে করে তাকেই IPS অফিসার বানালেন এই DSP ম্যাডাম

বেকার ছেলেকে বিয়ে করে তাকেই IPS অফিসার বানালেন এই DSP ম্যাডাম

বিহারের ডিএসপি রেশু কৃষ্ণা নিজের শখ পূরণ করতে স্বামীকে বানালেন আইপিএস অফিসার। সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনকিছু ভাইরাল হতেই বেশি সময় লাগে না। সোশ্যাল মিডিয়া যেমন কাউকে ফেম দিতে পারে আবার তেমনি কাউকে অসুবিধাতেও ফেলতে পারে। বিহারের সিডিপিও রেশু

কৃষ্ণা সোশ্যাল মিডিয়ায় তার স্বামীর সাথে একটি ছবি পোস্ট করেন। যেখানে বর্দি পরে দেখা যায় তাদের। এই ছবি নিয়েই কেউ পিএম এর কাছে কমপ্লেন করেন। যে কারণে এখন রেশু কৃষ্ণা ও তার স্বামীর ওপর চলছে পরিদর্শন। এই নিয়ে খতিয়ে দেখার পর তারা দোষী সাব্যস্ত

হলে, তারা পড়তে পারেন বিপদে। আসুন বিস্তারিত জেনে নিই এই সম্পর্কে- আসলে এসডিপিও রেশু কৃষ্ণা তার স্বামীর সাথে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি আপলোড করেছিলেন। স্বামীর সাথে ছবি আপলোড করাতে কোনো অসুবিধা ছিল না। আসল অসুবিধা হলো যখন দেখা গেল তার

স্বামী আইপিএস অফিসারের ইউনিফর্ম পরে ভিক্টরি সাইন দিয়ে সেলফি তুলেছেন রেশু কৃষ্ণার সাথে। যারা রেশু কৃষ্ণাকে চিনতেন বা তার স্বামীকে জানতেন তারা প্রত্যেকেই জানেন রেসু কৃষ্ণার স্বামী কোনো কাজ করেন না। সেখানে তাহলে হঠাৎ করে তিনি আইপিএস অফিসারের ইউনিফর্ম কি করে পরতে পারেন! এই ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে আপলোড হওয়ার পর এক ব্যক্তি পিএমওকে সকল তথ্য জানিয়ে ইমেইল

করেন। এরপরই পিএম বিহার পুলিশের ওপর দায়িত্ব দেন সঠিক তথ্য পেশ করার। যদিও রেশু কৃষ্ণাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি জানিয়েছিলেন তার স্বামী আসলেই একজন আইপিএস অফিসার। কিন্তু এই নিয়ে যখন তল্লাশি করা হয় জানা যায় রেশু কৃষ্ণার স্বামী আইপিএস অফিসার নন বরং তিনি বেকার। যদিও ডিএসপি রেশু কৃষ্ণা সোশ্যাল মিডিয়াতে তার ও তার স্বামীর ছবিটি ইতিমধ্যে ডিলিট করে দিয়েছেন।

ভাগলপুরের এসএসপি নিতাশা গুড়িয়া কে সমস্ত ঘটনার তল্লাশি করে সঠিক তথ্য পুলিশ মুখ্যালয় জমা করতে বলা হয়েছিল। তার পেশ করা রিপোর্ট অনুযায়ী যে সমস্ত তথ্য সামনে এসেছে তার ভিত্তিতে রেশু কৃষ্ণা ও তার স্বামী গ্রেফতার পর্যন্ত হতে পারেন। অবশ্য এই নিয়ে রেশু

কৃষ্ণকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি এই সমস্ত ঘটনাকে এক লহমায় মিথ্যে বলে দেন। তিনি বলেন এই সম্পর্কে তার কোনো আইডিয়া নেই। ভারতীয় আইন অনুযায়ী কোনো সাধারন মানুষ আর্মি বা পুলিশ অফিসারদের ইউনিফর্ম পরতে পারেন না। যদি এই নিয়ম লঙ্ঘন করা হয় এবং এতে যদি কোনো সরকারি কর্মীর মদত পাওয়া যায় তবে সরকারি কর্মীটিকে বরখাস্ত করা হবে এবং উভয়কেই তিন বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেয়া হতে পারে।।

Check Also

শুধুমাত্র ইন্টারভিউ এর মাধ্যমে চাকরি দিচ্ছে রাজ্য সরকার, রইল আবেদন পদ্ধতি

শুধুমাত্র ইন্টারভিউ এর মাধ্যমে চাকরি দিচ্ছে রাজ্য সরকার, রইল আবেদন পদ্ধতি

শুধু ইন্টারভিউ এর মাধ্যমে চাকরি দিচ্ছে রাজ্য সরকার, রইল আবেদন পদ্ধতি- লিখিত পরীক্ষা নয়, শুধুমাত্র ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *