Thursday , July 29 2021
Home / বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি / স্মার্টফোন আসল নাকি নকল কীভাবে বুঝবেন? জা’নুন সহজ পদ্ধতিতে..

স্মার্টফোন আসল নাকি নকল কীভাবে বুঝবেন? জা’নুন সহজ পদ্ধতিতে..

আপনার মোবাইল ফোন আসল নাকি নকল কীভাবে বুঝবেন? জা’নুন সহজ পদ্ধতিতে.. – স্মার্টফোন বাজারে প্রায় কোনও না কোনও কোম্পানি নতুন ফোন লঞ্চ করতেই থাকে। এর কোনও অন্ত নেই। এর সাথে এইটাও বলা যেতে পারে যে সব ফোনই প্রায় সমান, কেউ কম

কেউ বেশী। এইটাও বলা যেতে পারে যে আমারা আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মধ্যে সবার ওপরে স্মার্টফোনকেই রাখি।তাই এই দরকারী জিনিস কিনতে আমরা দশবার সেটা যাচাই করেনি যে কোন ফোনটা আমাদের জন্য ভাল হবে। কিন্তু সেই সময় আমরা অনেক সময এইটা

বুঝতে পারিনা যে অজান্তে আমরা নকল ফোন কিনে ফেলি। যে এই ফোনেরও কিন্তু আসল নকল হয়। ভাবছেন তাও কি করে সম্ভব? আর কি করেই বা তা আপনারা বুঝতে পারবেন।

১. স্মার্টফোন আসল না নকল কীভাবে জানবেন? আসলে চারিদিকে এত আসল নকলের মাঝে এখন সব কিছুরই নকল হচ্ছে, আর এক্ষেত্রে আপনি হয়ত একটি দামি ফোন কিনলেন আর বুঝতেও পারলেন না যে সেটি নকল …কোন দিক কোন সমস্যা হলে বা আর কিছুতে আচমকাই যেদিন বুঝলেন সেদিন আর করার কিছু থাকল ন। তাই আগে থেকেই সাবধান হওয়া ভাল। আর আজকে আমরা আপনাদের আসল নকল ফোন চেনার উপায় বলব। তবে তা বলার আগে আপনাদের বলে রাখি যে চিনে স্যামসাংয়ের অনেক হাই এন্ড ফোনেরও নকল করা হয়। ANTUU 2017 সালে নক অফ স্মার্টফোন রিপোর্ট অনুসারে স্যামসাং স্মার্টফোন গত বছর 36% র বেশি নকল হয়েছে আর এই তালিকায়আইফোন,

হুয়াওয়ের মতন একাধিক ব্র্যান্ডের ফোনের নাম আছে। ‘চিনে যখন এত বড় বড় ব্র্যান্ডের নামি দামি ফোনের এই হারে নকল নবীশ হয় তখন আমাদের দেশেও যে ফোন নকলের বাজার নেই তা নয়। হয়ত সেই নিয়ে কোন তথ্য বা ডকুমেন্ট এখন আমাদের কাছে নেই কিন্তু যদি না বুঝে সেই নকল ফোনের কোন ফোনই আপনার হাতে আসে তখন? তাই আগে থেকেই সাবধান হওয়া ভাল।

২.ফোনের ডিজাইন প্রথমেই নকল ফোন দেখে চেনার উপায় এর বাইরের ডিজাইন। নকল ফোনে বটন প্লেসমেন্ট আলদা হয় আর বেজেলও অন্য রকমের মনে হতে পারে বা সন্দেহজনক মনে হতে পারে। ফোনে ক্যামেরা প্লেসমেন্ট সন্দেহজনক হতে পারে । তবে এত সহজে ডিজাইন দেখে চেনা খুব মুস্কিল। তবে এভাবেই ফোন চেনা শুরু করা উচিৎ। আপনারা যদি কোন দোকান থেকে ফোন কেনেন তবে সবার আগে

আপনাদের ফোন অন করে দেখা উচিৎ। আর তা যদি না করেন তবে ফোনে পরে সমস্যা হতে পারে। আর যদি ফোন অন করে সবার আগে আপনারা UI কম্পানির থিমে আছে কিনা দেখা উচিৎ। আসল আর নকলের পার্থক্য এখানেই দেখা যাবে। আসল ফোনের পার্ফর্মেন্স এখানে দরকার, আস্ল ফোনে সব থেকে বড় জিনিস ফোন কেনার পরেই বোঝা যায়।

৩. টেস্ট না করার ভুল যদি কারও থেকে কোন পুরনো ফোন কিনছেন তবে সেই ফোনটি ভাল করে দেখে নেওয়া উচিৎ। মানে কেনার আগে কয়েকদিন ব্যাবহার করে দেখা দরকার। এই সময়ে যদি কোন সমস্যা দেখা যায় তখন সেই ফোন না নিয়ে বা পুরো টাকা দেবেন না। আর এই সময়ে ফোনের বাইরের কন্ডিশান দেখুন আর এর পার্ফর্মেন্স্ব এসব দেখা যাবে।

৪. হার্ডওয়্যার ইত্যাদি আপনারা যদি কোন ফোন নেন তবে সবার আগে সেই ফোনের হার্ডওয়্যার কোম্পানির আসল হার্ডওয়্যারের সঙ্গে দেখা দরকার। ধরুন 4GB র‍্যাম আর হাই এন্ড প্রসেসারের ফোন আর এর সঙ্গে কোন পরিচিত GPU আছে। আর স্টোরেজের বিষয়েও আপনারা প্রথমেই জানবেন। আর তাই ফোন নেওয়ার সময়ে এই জিনিস দেখে নেওয়ার দরকার। যদি এসবে মিলে যায় ত ভাল আর না মিললে সাবধান।

৫. CPU-Z বেঞ্চ চালিয়ে দেখুন ফোন কেনার পরে একবার তাতে বেঞ্চমার্ক চালিয়ে দেখা দরকার, এর থেকে আপনারা ফোনের হার্ডওয়্যার কি আর তা আসল কিনা। IMEI নাম্বার আর এবার আমরা বলব যে ফোনের IMEI নামার দেখা দরকার যদি এখানে কোন গরবর চোখে পরে তবে সাবধান।
৬. আপনারা ফোন কেনার আগে অনেক দেখে সুনেই তা কিনে থাকেন। তাও আমরা আপনাদের জন্য এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আবারও ফোন কেনার বিষয়ে কিছু জিনিস আর কিছু সচেতনতা অবলম্বন করা উচিৎ সেই বিষয়ে বল্লাম।

Check Also

Jio-র দুর্দান্ত অফার! ৯ টাকায় প্রতিদিন ৩ জিবি ডাটার সঙ্গে Unlimited কল

Jio-র দুর্দান্ত অফার! ৯ টাকায় প্রতিদিন ৩ জিবি ডাটার সঙ্গে Unlimited কল

গ্রাহকদের জন্য ফের নতুন প্ল্যান নিয়ে হাজির মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স জিও কোম্পানি। নতুন এই আকর্ষণীয় ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *