Thursday , October 22 2020
Home / স্বাস্থ্য / সুস্থ্যভাবে বেশিদিন বাঁচতে চান? তাহলে আজ হতে এই ৪টি কাজ বাদ দিন
Image: google

সুস্থ্যভাবে বেশিদিন বাঁচতে চান? তাহলে আজ হতে এই ৪টি কাজ বাদ দিন

অতি তাড়াতাড়ি পৃথিবীর মায়া কে ত্যাগ করতে চায় বলুন। সবাই চায় আর একটু বেশি দিন বেঁচে থাকতে, পৃথিবীটাকে আরও বেশি উপভোগ করতে । তবে সুস্থ্য থাকলে যে কাজগুলো করতে গিয়ে অনেকেউ হোঁচট খেয়ে মুখ থুবড়ে পড়ে যান। কেননা ভবির্ষ্যতকে উপভোগ করতে হলে আপনাকে বর্তমানের মায়া ত্যাগ করতে হবে।

বিংশ শতাব্দীতে উন্নত ওষুধ, স্বাস্থ্য নিরাপত্ত, উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থ্যা, কাজের পরিবেশ ও ব্যক্তি সর্তকতার ফলে বিশ্বর প্রথম সারির দেশ গুলোর গড় আয়ু। আমাদের দেশের মানুষও চাইলে বাড়াতে পারে তাদের গড় আয়ু। তবে এজন্য আপনাকে বিশেষ কিছু নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে।

চলুন তাহলে যে ৪টি কাজ বাদ দিতে হবে এবং বেশি দিন বাঁচতে হলে যে নিয়মাবলী সর্ম্পকে বিস্তারিত জেনে নিতে হবে।

১। প্যাকেটজাত ও প্রকিয়াজাতকরণ খাদ্যদ্রব্য: আমরা এই আধুনিক যুগেে এসে প্রায় সকলেই প্যাকেটজাত ও প্রক্রিয়াজাতকরণ খাবার খাওয়াকে বেশি প্রধান্য দেই। বিশেষ করে সামাজিক স্ট্যাটাস বাড়াতে। এই প্রক্রিয়াজাত খাবারে বেশি পরিমাণে তেল, লবণ, চিনি, ঝাল, লবণ, ফ্যাট ব্যবহার করা হয় এবং এইসব খাবারে ফাইবার থাকে অনেক কম।

প্রক্রিয়াজতকরণ খাবার খেলে হার্ট অ্যার্টাক, স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস রোগের ঝুঁকি বাড়ে। তাই আপনার খাদ্য তালিকা হতে এই সব খাবার বাদ দিয়ে সবুজ শাক সবজি, ফলমূল ও আঁশ জাতীয় খাবার খান। সেই সাথে ধূমপান ও মদ্যপানের অভ্যাস থাকলে এখনি বাদ দিন। সেই সাথে পানিও খাবেন বেশি বেশি।

২। নেতিবাচক চিন্ত বাদ দিন: একজন মানুষ হিসেবে সবসময় আপনাকে ইতিবাচক চিন্তাভাবনা করতে হবে। নেতিবাচক চিন্তা আপনার জীবনী শক্তিকে নষ্ট করে দেয় এবং অপনার স্ট্রেস লেভেলকে বৃদ্ধি করে দেয়। ফলে আপনার মধ্যে দেখা যায় রাগ, হতাশা, ক্ষোভ, বিষন্নতা এবং অধিক পরিমাণে খাওয়ার অভ্যস।

তাই নেতিবাচক চিন্তা পরিহার করে ইতিবাচক চিন্তা করুন। সেই সাথে আপনার জীবনের লক্ষ্য ঠিক রাখুন এবং সেই অনুপাতে কাজ শুরু করে দিন। দেখবেন আপনার স্টে্রস কমে গেছে। ফলে আপনার জীবনী শক্তি আরও বেশি বৃদ্ধি পাবে।

৩। একজায়গায় একভাবে বসে থাকবেন না: আমাদের সমাজে এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যে তারা সারাদিন এক স্থানে অনেকক্ষণ বসে কাজ করতে থাকেন। এটি কিন্তু শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তাই সব মানুষের উচিৎ প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট করে হাঁটা চলাচল করা কিংবা ব্যয়াম।

ব্যয়াম না করলে আপনি ধীরে ধীরে অসুস্থ্যতার দিকে চলে যাবেন। সারাদিন কাজের চাপে এক জায়গার বসে না থেকে অল্প সময়ের জন্য হলেও আপনাকে কাজের মাঝে বিরতি দিয়ে হাঁটা চলাচল করতে হবে।

৪। রাতের ঘুম বাদ দেওয়া যাবে না: আপনি যতই কাজের চাপে থাকেন আর যতই ব্যস্ততা থাকেন না কেন রাতের ঘুম কোনভাবেই বাদ দেওয়া যাবেন। রাতে ঘুম আমাদের শরীর সুস্থ্য থাকার জন্য খুব উপকারি। প্রতিদিন কমপক্ষে ৭ হতে ৮ ঘণ্টা রাতে ঘুমান। নতুবা আস্তে আস্তে আপনার ইনসোমেনিয়া সমস্যা হবে।

রাতে ঠিকমত ঘুম না হলে আপনার হার্ট অ্যাটাক, ডায়াবেটিস, স্ট্রোক, ওজন বেড়ে যাওয়াসহ আরও নানা রোগের আক্রমণ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। যাই করেন আর তাই করেন। রোজ রাতে পর্যাপ্ত ঘুম দরাকার বেশিদিন বাঁচতে হলে।

Check Also

আপসোস করতে না চাইলে বয়স ৩০ হওয়ার আগেই এই ৭টি কাজ করুন

আপসোস করতে না চাইলে বয়স ৩০ হওয়ার আগেই এই ৭টি কাজ করুন – আশেপাশে তাকিয়ে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
error: Content is protected !!