Thursday , December 3 2020
Home / স্বাস্থ্য / রাতে ভাত না খেয়ে যদি রুটি খান তাহলে, আপনার অবশ্যই যা জা’না দরকার
image: google

রাতে ভাত না খেয়ে যদি রুটি খান তাহলে, আপনার অবশ্যই যা জা’না দরকার

রাতে ভাত না খেয়ে যদি রুটি খান তাহলে, আপনার অবশ্যই যা জা’না দরকার – দৈনন্দিন জীবনে রুটি আমাদের খাদ্য তালিকার অন্যতম অংশ। উত্তরপ্রদেশ, পাঞ্জাব, হরিয়ানা প্রভৃতি জায়গায় ভাতের থেকে রুটিকে বেশি প্রাধন্য দেওয়া হয়। আমরা বাঙালিরাও রাতে রুটি টাই বেশি

পছন্দ করে থাকি।রাতে যদি খাবারের মেনুতে রুটি মাংস কিংবা গরম গরম রুটি তরকা হয় তো কোন কথাই নেই। খাবারের মেনু পুরো জমে যায়, এর থেকে ভালো কিছু মনে হয় না তখন। কিন্তু এই রুটি আমাদের শরীরে কতটা প্রভাব ফেলে জানেন? প্রতিদিন রাতে রুটি খাওয়াটা

উপকারী না অপকারী সেটা জানা গুরুত্বপূর্ণ, যদি জেনে না থাকেন তবে এখনই জেনে নিন। ভাতের পরেই রুটি আমাদের দৈনন্দিন জীবনে খাবারের মধ্যে অন্যতম পুষ্টিকর খাদ্য। এই রুটি অর্থাৎ আটায় থাকে বিভিন্ন পুষ্টিকর উপাদান যা আমাদের হার্ট পর্যন্ত উন্নতি ঘটিয়ে অনেকটাই

হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়। শরীরের একাধিক সমস্যার সমাধান করে শরীরকে ফিট রাখে। আটায় সব থেকে বড় বিষয় হল কোন ফ্যাট থাকে না, তাই রাতে রুটি খেলে নীচের উল্লিখিত পরিবর্তন ও উপকার সাধন হয়। ১। ক্যালোরির পরিমান-রুটিতে ক্যালোরির পরিমান খুবই

কম, তাই রুটি খেলে শরীরের ওজনের বৃদ্ধি হয় না এবং শরীর ফিট থাকে। তাই রাতে ডিনারে রুটি খান যারা নিজেদের ওজন বৃদ্ধি রুখতে চান। ২। চর্বির আধিক্য রুটিতে যেহেতু ফ্যাট থাকে না তাই রুটি খেলে ফ্যাট অর্থাৎ চর্বির আধিক্য হওয়ার সম্ভাবনা কমে ও চর্বি কমাতেও

সাহায্য করে। ৩। সুগারের মাত্রা রুটিতে গ্লাইসেমিক ইন্ডেক্স নামক উপাদান কম থাকায় রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক থাকে যা ডাইবেটিস রুগিদের ক্ষেত্রে ভীষন উপকারের। তাই ডায়বেটিস রুগিদের ক্ষেত্রে রাতের মেনুতে রুটি অবশ্যই খাওয়া উচিৎ। ৪। ভিটামিন ও খনিজ শরীর গঠনে যে

সকল ভিটামিন ও খনিজের দরকার হয় তা সবই থাকে রুটিতে, তাই রুটি খেলে সেগুলো আমাদের শরীরে খুব সহজেই প্রবেশ করতে পারে। ৫। মারাত্মক রোগের আশঙ্কা রুটি খেলে রক্ত চাও নিয়ন্ত্রন, হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোকের মতো মারাত্মক রোগের আশঙ্কা কমে যায়। ৬। হজম

ক্ষমতা রুটিতে থাক্স ফাইবার থাকে যা আমাদের শরীরের হজম ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। ফলে বদহজম, গ্যাস, অম্বল, বুক জ্বালার মতো শারিরীক সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়। তাই আর দেরি নয় পালটে ফেলুন নিজের রাতের মেনু আর নিয়ে আসুন রুটি। আর সুস্থ জীবনের স্বাদ অনুভব করুন।

Check Also

জিহ্বা দেখেই বোঝা যায় ঠিক কোন রোগে আ’ক্রা’ন্ত আপনি!

জিহ্বা দেখেই বোঝা যায় ঠিক কোন রোগে আ’ক্রা’ন্ত! – জিহ্বার রঙ দেখে- সাধারনত ডাক্তার জিহ্বা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x