Wednesday , May 12 2021
Home / লাইফ-স্টাইল / রাতে ঘুমানোর আগে যে পানীয় ১ গ্লাস খেলে উধাও মেদ-ভুঁড়ি

রাতে ঘুমানোর আগে যে পানীয় ১ গ্লাস খেলে উধাও মেদ-ভুঁড়ি

দিনে দিনে আমাদের ব্যস্ততা যেন বেড়েই চলছে। কোন অবসর নেই আমাদের জীবনে! ঠিক ব্যস্ততার সাথে পাল্লা দিয়ে যেমন আমরা কমে যাচ্ছে আমাদের পরিশ্রম ও একবারে অলসও হয়ে যাচ্ছি। বর্তমানে আমরা যেন কাজ ছাড়া কিছুই বুঝি না। প্রতিনিয়ত মানসিক পরিশ্রমের ফলে আমরা এতটাই ক্লান্ত হয়ে পড়ি যে, আমাদের আর অন্য কোন পরিশ্রম করতে ইচ্ছে করে না। আর যার ফলে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মেদ-ভুঁড়ি।

সমস্ত দিনের ক্লান্তি শেষে শরীরের দিকে তাকানোর আমাদের কোন সময় বা ইচ্ছা কোনটাই আর থাকে না। এখন সময় বদলেছে, আগের দিনে মানুষের ব্যাপক শারীরিক পরিশ্রম ছিল, নানা প্রকার খেলাধুলা ছিল, যা শারীরিক ব্যয়ামের কাজ করত। কিন্তু বর্তমানে সময় বদলেছে আর শারিরীক পরিশ্রম একবারে নেই বললেই চলে।

বিশেষ করে যারা মোটা তাদের শারীরিক গঠনের কারণে তাদের দেখতে বিশ্রী লাগে। তবে এই মুটিয়ে যাওয়ার কারন অবশ্য রয়েছে অনেক। যেমন; শারীরিক পরিশ্রম না করা, ফাস্টফুড জাতীয় খাবার খাওয়া, অতিরিক্ত জঙ্কফুড খাবার খাওয়া কারণে শরীরে মেদ, চর্বির পরিমাণ বেড়ে যায় অনেক। আর এই অতিরিক্ত মেদ, চর্বির কারণে শরীরে নানা রকম রোগ বাসা বাঁধে।

শরীরে মেদ বর্তমানে এক বিশাল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে জীবনযাত্রায় প্রায় প্রতিটি মানুষেরই ভুঁড়ি রয়েছে। তাই রমরমিয়ে বাড়ছে জিম ব্যবসা, ডায়েট প্লানিং। কিন্তু যেন কোন কিছুতেই কোন কাজ হচ্ছে না। বরং উল্টো বেড়েই চলছে ভুঁড়ি। আর ডায়েট প্লানের কারণে সেদ্ধ খাবার খেয়ে শরীর হয়ে পড়ছে দূর্বল।

মেদ, চর্বি ভুঁড়ি কমানো এক ঘরোয়া উপায় আজ আপনাদের জানিয়ে দিব যা রোজ রাতে ১ গ্লাস করে পান করলে উধাও হবে সব কিছু। এজন্য আপনাকে একটি পাতি লেবু, একটি শশা, ১ চামচ আদা বাটা, গুটি কয়েক পার্সেল পাতা একত্রে মিশিয়ে ব্লেন্ডারে জুস করে নিতে হবে আর রাতে শোবার আগে রোজ ১ গ্লাস করে পান করবেন। দেখবেন ১ সপ্তাহের ভিতর ভূঁড়ি কমে পেট স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

About Moni Sen

Check Also

কোন ইলিশ পদ্মার আর কোনটির পেটে ডিম, জে’নে নিন

কোন ইলিশ পদ্মার আর কোনটির পেটে ডিম, জে’নে নিন

মাছের রাজা ইলিশ। শুধু নামেই নয়, কাজেও এর পরিচয় মেলে। বাংলাদেশের মোট মৎস্য উৎপাদনের প্রায় ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x