Thursday , October 21 2021
Home / সংস্কার / ভায়া’গ্রার চেয়েও বেশি কার্যকর যে ৫টি খাবার

ভায়া’গ্রার চেয়েও বেশি কার্যকর যে ৫টি খাবার

ভায়া’গ্রার চেয়েও বেশি কার্যকর যে ৫টি খাবার – সুস্থ দেহ ও সুন্দর মন পাওয়ার আকাঙ্খা সবারই থাকে। আজীবন তারুণ্য ধরে রাখতে এবং য ‘বনের রঙিন দিন অতিবাহিত করতে কার না ইচ্ছে করে। আর সেই ইচ্ছে পূরণের জন্য নিয়মিত পুষ্টিকর ও সেই সঙ্গে ভেজালমুক্ত খাবার

খাওয়ার কোনও বিকল্প নেই। শুধু তাই নয়, জীবনে উদ্দীপনা আনতে ভায়াগ্রার সাহায্য নেন অনেকেই। বর্তমান জীবনযাপন ও খাদ্যাভ্যাসের কারণে আমাদের জীবনে শিথিলতা আসছে। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় যদি থাকে এমন কিছু খাওয়ার যার মধ্যে রয়েছে জিনসিনোসাইড, তাহলে আপনার জীবনে ফিরে আসতে পারে যৌ’বন। জেনে নিন, এ জাতীয় ৫টি ভেষজ খাবারের নাম, যা ভায়াগ্রার চাইতে বেশি উত্তেজক-

১। সজনে ডাঁটা : এক গ্লাস দুধে সজনে ফুল, লবন ও গোলমরিচ মিশিয়ে প্রতিদিন খেলেও আপনার ক্ষমতা বাড়বে। ২। রসুন : রক্তে শর্করা ও কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে রসুন। ফলে প্রতিদিনের ডায়েটে যদি রসুন থাকে তবে উ’ত্তেজ’না বাড়বে। আফ্রিকান হেলথ সায়েন্সসও এটা প্রামাণ করেছে, আদার মতোই উপকারী রসুন।

৩। হিং : রান্নায় আমরা হিং মেশাই। প্রতিদিন সকালে ১ গ্লাস জলে এক চিমটি হিং ফেলে খেলে আপনার কামনা বাড়বে। বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি টানা ৪০ দিন ধরে রোজ ০.০৬ গ্রাম হিং খাওয়া যায় তাহলে পেতে পারেন সুস্থ জীবন।৪। জিরা : জিরার মধ্যে থাকা পটাশিয়াম ও জিঙ্ক রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে বাড়ে উ’দ্দীপ’না। প্রতিদিন এক কাপ গরম চায়ে জিরা ফেলে খেতে পারেন উপকার পাবেন।

৫। আদা : বিভিন্ন ক্ষেত্রে আদার উপকারিতার কথা আমাদের সবার কম-বেশি জানা। সুস্থ জীবন বজায় রাখতেও অপরিহার্য্য হতে পারে আদা। আদার মধ্যে থাকা ভোলাটাইল অয়েল স্নায়ুর উ’ত্তেজ’না বাড়ায় ও রক্ত সঞ্চালনের মাত্রা ঠিক রাখে।

স্বা’মী-স্ত্রীর যে ১০ ভু’লে স’ন্তান হয়না সারাজীবন !
বিবাহবয়স বাড়ার সঙ্গে না’রীর স’ন্তান ধারণ ক্ষ’মতা প্রাকৃতিকভাবেই খানিকটা কমে আসে। শুধু তা-ই নয়, জীবনযাপনের আরো কিছু বি’ষয় স’ন্তান ধারণক্ষ’মতাকে কমিয়ে দেয়। চলুন বিস্তারিত জেনে নিন_ ১. অতিরিক্ত ওজন অতিরিক্ত ওজন স’ন্তান না হওয়ার একটি অন্যতম

কারণ। এটি শ’রীরের হরমোনের মাত্রাকে প্রভাবিত করে এবং না’রীর স’ন্তান ধারণ ক্ষ’মতাকে অত্যন্ত জটিল করে তোলে। এর ফলে না’রীর জ’রায়ুর কার্যক্ষ’মতাও হ্রাস পায়। ২০০৯ সালের এক গ’বেষ’ণায় বলা হয়, ১৮ বছর বয়সের যেসব না’রী ওজনাধিক্যের সমস্যায় রয়েছেন, তাঁরা জরায়ুর বিভিন্ন সমস্যায় আ’ক্রান্ত হন এবং তাঁদের স’ন্তান জন্ম’দানের ক্ষ’মতা কমে যায়।

২. রুগ্ন শ’রীর অতিরিক্ত ওজন যেমন স’ন্তান ধারণ ক্ষ’মতা হ্রাস করে, তেমনি খুব বেশি পাতলা হওয়াও ক্ষ’তিকর। বেশি চিকন হলে না’রীর দেহে ল্যাপটিন হরমোনের অভাব হয়। এই হরমোন ক্ষুধাকে নিয়’ন্ত্রণ করে। শ’রীরে এই হরমোনের ঘাটতি হলে ঋতুচ’ক্রের সমস্যা হয়। তাই গবেষকদের মতে, উচ্চতা এবং ওজনের সামঞ্জস্য বজায় রাখু’ন। সুষম খাদ্য এবং নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমে ওজন ঠিক রাখু’ন। এটি না’রীর বন্ধ্যত্ব দূর করতে সাহায্য করে।

৩. বয়স বেশি হওয়া যখন না’রীর ঋতুচ’ক্র স্বাভাবিকভাবে বন্ধ হয়ে যায়, তখন সে আর স’ন্তান ধারণ Child capacity করতে পারে না। ঋতুচ’ক্র একবারে বন্ধ হয়ে যাওয়াকে মেনোপজ বলে। তবে যদি মেনোপজের ঠিক আগের পর্যায়ে শ’রীরে ইসট্রোজেন বা প্রোজেস্টেরন হরমোনের মাত্রা কমে যায় বা একদমই নিঃসৃত না হয়, তখন তাকে পেরিমেনোপজ বলা হয়। মেনোপজ হয় সাধারণত ৪৫ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে। ৪৫ বছরের আগেই পেরিমেনোপজ হতে পারে। তাই অধিকাংশ চিকিৎসকের মতে, ৩৫ বছরের আগে স’ন্তান নেওয়া উচিত। এর পরে স’ন্তান ধারণক্ষ’মতা কঠিন হয়ে পড়ে।

৪. বংশগত কারণ যদি আপনার মায়ের মেনোপজ আগে হয়, তবে আপনারও আগে থেকেই মেনোপোজ হওয়ার আ’শঙ্কা থাকে। না’রীরা জন্মায় কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক ডিম্বাণু নিয়ে এবং এই জিনিসটি বেশি হওয়া বা কম হওয়ার পেছনে জিনগত কারণও কাজ করে। এ রকম অনেক কিছুই নির্ভর করে বংশগত কারণে। গবেষকদের মতে, যদি পরিবারে দেরিতে স’ন্তান ধারণের ইতিহাস থাকে, তবে আপনারও দেরিতে স’ন্তান হতে পারে।

৬. মা’নসিক চা’প গ’বেষ’ণায় বলা হয়, যেসব না’রী দীর্ঘদিন ধরে মা’নসিক চা’প বা দুশ্চিন্তার মধ্যে থাকেন, তাঁদের স’ন্তান ধারণ ক্ষ’মতা Child capacity অনেক কমে যায়। কারণ, চা’প শ’রীরের বিভিন্ন পরিবর্তন ঘটায়। তবে চা’পই এর একমাত্র কারণ নয়। গবেষকদের পরামর্শ, যেসব না’রী স’ন্তান নিতে চাইছেন, তাঁদের চা’প নিয়’ন্ত্রণ পদ্ধতি শেখা খুব জরুরি।

Check Also

মা লক্ষ্মীর কৃপায় আর্থিক সংকট হবে দূর

বৃহস্পতিবারে চাল দিয়ে করুন এই ঘরোয়া টোটকা, মা লক্ষ্মীর কৃপায় আর্থিক সংকট হবে দূর

বৃহস্পতিবারে চাল দিয়ে করুন এই ঘরোয়া টোটকা- বর্তমান পরিস্থিতিতে মানুষের জীবন নানা সমস্যার মধ্য দিয়ে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *