Tuesday , October 27 2020
Home / সংবাদ / ভারতের যে গ্রাম ১১ মাস জলের তলায় থাকে
Image: google

ভারতের যে গ্রাম ১১ মাস জলের তলায় থাকে

ভারতের যে গ্রাম ১১ মাস জলের তলায় থাকে – সত্যিই শুনতেই আবাক লাগে, এমনও গ্রাম রয়েছে! “সুজলাং সুফলাং মলয়জশীতলাম শস্যশ্যামলা মাতরম”। অপরূপ সৌন্দর্যে ভরা ভারত। কেউ যদি গোটা দেশ ঘুরে দেখেন তাহলে তাঁর পৃথিবীর ৭৫ শতাংশ সৌন্দর্য চাক্ষুস করা হয়ে যাবে। হ্যাঁ একদমই সঠিক কথা। আমাদের দেশ ভারতে

এমন কিছু জায়গা আছে যা অনেকের কাছে সত্যিই অজানা। অথচ সৌন্দর্যে ভরপুর। যেন প্রকৃতি নিজের ইচ্ছেমতো গড়ে নিয়েছে তাকে। আর এমনই একটি গ্রাম হল ‘কুড়দি’। গোয়া রাজ্যের পশ্চিমঘাট পর্বতমালার পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত এই গ্রাম। জনসংখ্যা তেমন না থাকলেও বছরে

মাত্র একমাস জেগে থাকে এই গ্রাম। আর বাকি এগারো মাস থাকে জলের তলায়। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি ঘটনা। এতদূর পড়ে আপনি হয়তো ভাবছেন এটা কীভাবে সম্ভব! এমনটা আবার কখনও হয় নাকি? আজ্ঞে হ্যাঁ এই গ্রামের পাশ দিয়েই বয়ে চলেছে গোয়ার সবচেয়ে বড় নদী জুরাই। তবে এই গ্রাম কিন্তু বেশ শস্যশ্যামলা। রয়েছে প্রচুর চাষযোগ্য জমি, আম, জাম এবং কাঁঠাল গাছে ভরতি। প্রায় তিন হাজার

গ্রামবাসী বাস করেন এখানে। এই গ্রামে শুধুমাত্র সর্বধর্ম সমন্বয় নয়, এখানে মন্দির, মসজিদ, গির্জা সবই আছে। তবে সবকিছুই বছরের মধ্যে কেবলমাত্র মে মাসেই দৃশ্যমান থাকে। বছরের বাকি দিনগুলি তা চলে যায় জলের তলায়। তখন অবশ্য গ্রামবাসীরা চলে যান অন্যএ। শোনা যায়,

১৯৬১ সালে পর্তুগিজরা যখন গোয়া ছেড়ে চলে যায় তখন ওই জায়গাটিতে একটি বড় জলাধার বানানোর পরিকল্পনা করেছিলো গোয়া সরকার। সেইসময় সালাউলিম জুড়েই তৈরি করা হয় এই জলাধার। যেখান থেকে পশ্চিম গোয়ায় জল সরবরাহ করা হত। প্রায় ৪০০ মিলিয়ন লিটার জল ধরে এই জলাধারে। তখনই সমস্যায় পড়ে কুড়দি গ্রাম। ফলে তখন ৬৩৪টি পরিবার ওখান থেকে চলে আসেন ভাদেমি ও ভালকিনিম গ্রামে।

কুড়দি থেকে যার দূরত্ব ১৫ কিলোমিটার। কিন্তু সমস্যা হল পানীয় জল নিয়ে। ওই জলাধারের জল পুরোটাই চলে যেত কারখানায়। পরে সরকারের তরফ থেকে তাঁদের জন্য আলাদা জলের ব্যবস্থা করা হয়।

Check Also

ভয়া’নক ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে কলকাতা! যে ৫টি এলাকা ডেঞ্জারজোনে রয়েছে

ভয়া’নক ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে কলকাতা! যে ৫টি এলাকা ডেঞ্জারজোনে রয়েছে – ভয়ানক ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
error: Content is protected !!