Thursday , January 21 2021
Home / লাইফ-স্টাইল / পোস্ট অফিসের নয়া স্কিমে মাত্র ১০ হাজার বিনিয়োগ করে ১৬ লক্ষ টাকা পর্যন্ত পেতে পারেন

পোস্ট অফিসের নয়া স্কিমে মাত্র ১০ হাজার বিনিয়োগ করে ১৬ লক্ষ টাকা পর্যন্ত পেতে পারেন

পোস্ট অফিসের নয়া স্কিমে মাত্র ১০ হাজার বিনিয়োগ করে ১৬ লক্ষ টাকা পর্যন্ত পেতে পারেন- অধিকাংশই টাকা ইনভেস্ট করতে গিয়ে কোনও রকম ঝুঁকি নিতে চান না। এ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা সব সময়ে পোস্ট অফিসের নানা স্কিমের উপর জোর দেন। কারণ, পোস্ট অফিসের

স্কিমগু’লি তুলনামূলক ভাবে অনেকটাই নিরাপ’দ, বেছে নিতে পারেন পোস্ট অফিসের বিশেষ রেকারিং ডিপোজিট স্কিম। এখানে অল্প বিনিয়োগ করেই নিরাপ’দে অনেকটা টাকা তোলা যাব’ে ঘরে। সুদের হারও ভাল। এই স্কিম সম্পর্কে বিশদে জেনে নিন– পোস্ট অফিসের RD স্কিমের

অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে বিশদে জেনে নেওয়া দরকার: পোস্ট অফিস RD স্কিমের জন্য সি’ঙ্গল ও জয়েন্ট অ্যাকাউন্টের সুবিধা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ তিনজন প্রা’প্ত বয়স্কের জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট ‘হতে পারে। অ’ভিভাবকের অধীনে ১০ বছরের উপরে ছেলেমেয়েদের অ্যাকাউন্টও খোলা

যায়। এর ম্যাচিওরিটি পাঁচ বছরে হয়। তবে ম্যাচিওরিটির আগে আবেদন জানানোর মাধ্যমে পরবর্তী ৫ বছর বাড়ানো যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে প্রতি মাসে কমপক্ষে ১০০ টাকা করে জমা করা যাব’ে অ্যাকাউন্টে। অ্যাকাউন্ট ওপেনিংয়ের সময় নমিনেশন ফেসিলিটিও থাকছে। অ্যাকাউন্ট

খোলা থেকে তিন বছর পর অ্যাকাউন্ট প্রিম্যাচিওরের আবেদন জানানো যাব’ে। সুবিধামতো এক পোস্ট অফিস থেকে অন্য পোস্ট অফিসেও ট্রান্সফার করা যাব’ে অ্যাকাউন্ট। প্রায় ৫০ শতাংশ পর্যন্ত লোন নেওয়ার সুবিধাও রয়েছে। IPPB অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে অনলাইন ডিপোজিটের

সুবিধাও পাবেন গ্রাহকরা। সুদের হিসেব: পোস্ট অফিসে কমপক্ষে পাঁচ বছরের জন্য একটি RD অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। জমা টাকার উপরে প্রতি কোয়ার্টারে সুদের হিসেব হবে। এর পর প্রতি কোয়ার্টার শেষে কমপাউন্ড ইন্টারেস্ট হিসেবে আপনার অ্যাকাউন্টের স’ঙ্গে যুক্ত হবে টাকাটি।

পোস্ট অফিসের ওয়েবসাইট অনুযায়ী, RD স্কিমে বর্তমানে সুদের হার ৫.৮ শতাংশ। এই বছর জুলাই মাস থেকেই প্রযোজ্য হয়েছে সংশ্লিষ্ট সুদের হার। যদি ১০,০০০ টাকা ইনভেস্ট করা যায়, তা হলে ১৬ লক্ষেরও বেশি টাকা পাওয়া যাব’ে: এই রেকারিং ডিপোজিট স্কিমে ১০ বছর পর্যন্ত

যদি প্রতি মাসে ১০,০০০ টাকা ইনভেস্ট করা যায়, তা হলে ম্যাচিওরিটির সময়ে প্রায় ১৬.২৮ লক্ষ টাকা পাওয়া যাব’ে। তবে একটা বি’ষয় মাথায় রাখতে হবে। যদি যথাসময়ে RD ইনস্টলমেন্ট ডিপোজিট না করা হয়, তা হলে ফাইন লাগবে। এ ক্ষেত্রে ইনস্টলমেন্টে দেরি হলে প্রতি

মাসে

এক শতাংশ (১০০ টাকায় ১ টাকা) করে পেনাল্টি হিসেবে দিতে হবে। এর পাশাপাশি যদি পর পর চারটি ইনস্টলমেন্ট জমা না দেওয়া হয়, তা হলে অ্যাকাউন্টটাই বন্ধ হয়ে যাব’ে। তবে একবার অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে গেলে, পরের দু’মাসের মধ্যে আবার অ্যাক্টিভেট করা যেতে পারে অ্যাকাউন্টটি।

About By Moni Sen

Check Also

স্বামী-স্ত্রীর ভালোবাসা

স্ত্রীর ভালোবাসা পেতে স্বামীরা যেসব কাজ করবেন

স্ত্রীর ভালোবাসা পেতে স্বামীরা যেসব কাজ করবেন – বিয়ের মধ্য দিয়ে পরিবারের সূচনা হয় ৷ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x