Tuesday , December 1 2020
Home / আধুনিক রান্নাবান্না / নষ্ট হয়ে যাওয়া দুধকে নতুন করে আবার যেভাবে কাজে লাগাবেন!
image: google

নষ্ট হয়ে যাওয়া দুধকে নতুন করে আবার যেভাবে কাজে লাগাবেন!

নষ্ট হয়ে যাওয়া দুধকে নতুন করে আবার যেভাবে কাজে লাগাবেন! – অনেক সময় দুধ গরম ক’রতে গিয়ে দেখা যায় সেটা ন’ষ্ট হয়ে গেছে। ন’ষ্ট হলেও সেই দুধ ফে’লে দেবেন না। কে’টে যাওয়া দুধেরও রয়েছে নানান ব্যবহার। জে’নে নিন কি’ভাবে কে’টে যাওয়া দুধের ব্য’বহার

করবেন :# দুধ যদি ফে’টে যায়, তা অনায়াসে সালাড ড্রে’সিং-এর কাজে ব্য’বহার ক’রতে পারবেন। তবে খেয়াল রা’খবেন দুধটা যেন পা’স্তুরাইজড মিল্ক না হয়। # ঘরের দুধ ফে’টে গেলে তা ফে’লে না দিয়ে চিজ বা’নিয়ে ফে’লুন। কী’ভাবে ঘরে চিজ বা’নাবেন, তার

রেসিপি ই’ন্টারনেটে স’হজেই পেয়ে যাবেন।# প্যা’নকেক, কেক এবং ওয়াফেল-এর মতো অনেক ডে’জার্টেই ফে’টে যাওয়া দুধ দি’তে হয়। তাই দুধ ফে’টে গেলে ডেজা’র্ট তৈরি ক’রতে পারেন। # ন’ষ্ট হয়ে যাওয়া দুধ আপনি খে’তে না পা’রলেও আপনার পো’ষা বে’ড়ালটা কিন্তু

ভালোবেসেই খাবে। কারণ ন’ষ্ট দুধের গ’ন্ধ ওদের ভালো লাগে।# ন’ষ্ট দুধ আপনার ত্ব’কের জন্য কিন্তু দা’রুণ উ’পকারী। কে’টে যাওয়া দুধ মুখে ফে’স মা’স্কের মতো লা’গিয়ে নিন। শু’কিয়ে গেলে ধু’য়ে ফেলুন, ত্বক ঝ’লমল করে উ’ঠবে। # বাগানে গাছের গো’ড়ায় ন’ষ্ট দুধ দিলে আপনাকে সার দিতে হবে না। দেখবেন আপনার ন’ষ্ট হয়ে যাওয়া দুধেই কীভাবে চারাগাছগুলো ত’রতরিয়ে বা’ড়তে থাকে।

কিসমিস খাওয়ার উপকারিতা –
বিভিন্ন মিষ্টান্নেই কি সবসময় কিসমিস ব্যবহার করা হয়? মোটেও না, হরেক পদে ব্যবহারের পাশাপাশি আস্ত কিসমিসও খেয়ে থাকেন অনেকেই! এর মিষ্টি স্বাদ ছোট বড় সবাইকে মুগ্ধ করে! শুধু স্বাদ বাড়াতেই নয় বরং সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতেও ছোট্ট কিসমিস কতটা উপকারী,

জানেন কি? তবে শুকনো কিসমিস খাওয়ার চেয়ে ভিজিয়ে খেলে বেশি উপকার মেলে। কিসমিস খাওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখা। পরের দিন ভোরে সেটা খেতে হবে খালি পেটে। ভেজানো কিসমিসে থাকে আয়’রন, প’টাসিয়াম, ক্যা’লসিয়াম, ম্যাগ’নেসিয়াম এবং ফাই’বার। তাছাড়া এতে থাকা প্রাকৃতিক চিনি শরীরের কোনো ক্ষতিও করে না। এমনকি উচ্চ র’ক্তচাপের সমস্যা থাকলেও

এটি তা বশে রাখে। জেনে নিন ভেজানো কিসমিস ও এর পানি পান করলে শরীর কতটা লাভবান হয়- ১. ভেজানো কিসমিস খেলে শরীরে আয়’রনের ঘাটতি দূর হয়। ২. র’ক্তে লাল কণিকার পরিমাণ বাড়ে। ৩. কিসমিস ভেজানো পানি র’ক্ত ​​পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। ৪. এমনকি প্রতিদিন কিসমিস ভেজানো পানি পান করলে কো’ষ্ঠকাঠিন্য, অ্যা’সিডিটি থেকে মুক্তি মেলে। ৫. কিসমিস হা’র্ট ভালো রাখে। ৬.

নিয়ন্ত্রণে রাখে কোলে’স্টেরল। ৭. কিসমিসে প্রচুর ভিটামি’ন এবং খনিজ উপাদন রয়েছে। ৮. এতে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যা’ন্টিঅক্সিডে’ন্টসমূহ। যা বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি দেয়। ৯. কিসমিসে আরো আছে প’টাসিয়াম, ক্যা’লসিয়াম, ম্যা’গনেসিয়াম এবং ফাই’বার। ১০. উচ্চ র’ক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কিসমিস বেশ উপকারী একটি দাওয়াই। ১১. র’ক্ত স্বল্পতা কমাতে কিসমিসই যথেষ্ট। নিয়মিত খেলে এর মধ্যে থাকা আয়র’ন হি’মোগ্লো’বিনের মাত্রা বাড়ায়। ১২. সুস্থ থাকতে ভালো হজমশক্তি প্রয়োজন। এক্ষেত্রে কিসমিস হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

Check Also

গ্যাস বার্নার পরিষ্কার করার ৬টি ঘরোয়া টিপস

গ্যাস বার্নার পরিষ্কার করার ৬টি ঘরোয়া টিপস – ঘর সুন্দর করে গোছাতে গেলে রান্নাঘরের প্রত্যেকটা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x