Tuesday , October 27 2020
Home / স্বাস্থ্য / ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে যাচ্ছেন নাকি নাকি হয়েই গেছে? এই ৫টি লক্ষণ দেখলেই বুঝতে পারবেন
ডায়াবেটিস
Image: google

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে যাচ্ছেন নাকি নাকি হয়েই গেছে? এই ৫টি লক্ষণ দেখলেই বুঝতে পারবেন

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে যাচ্ছেন নাকি নাকি হয়েই গেছে – আপনি যদি সঠিক সময়ে অপনার শরীরের লক্ষণগুলো চিহ্নিত করতে না পারেন তবে আপনার জন্য অপেক্ষা করছে ডায়াবেটিস। যদি লক্ষণগুলো চিহ্নিত করে সঠিক সময়ে সঠিক ব্যবস্থা নিতে পারেন তবে প্রাথমিক অবস্থায় ডায়াবেটিস নির্মূল করতে পারবেন।

আপনি স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ হয়ে থাকলে এই বিষয়ে আপনার অবশ্যই সচেতন হওয়া দরকার। শারীরিক অসুস্থ্যতা ও অসুবিধার জন্য শরীরে ডায়াবেটিস দেখা দেওয়ার পূর্বে কিছু লক্ষণ দেখা যায়। এ লক্ষণগুলো দেখে আপনি সহজে সনাক্ত করতে পারবেন যে, আপনি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে চলেছেন নাকি আপনি আক্রান্ত হয়ে গেছেন? চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক –

১। শরীরে অবসাদ ও ক্লান্তিবোধ তৈরি হওয়া: ডায়াবেটিস রোগের পূর্ব লক্ষণ হলো সবসময় শরীরে অবসাদ লাগা ও ক্লান্তিবোধ ‍তৈরি হওয়া হওয়া। ডায়াবেটিসের ফলে সবসময় ক্ষুধাবোধ কাজ করায় শরীরিকভাবে দিন দিন অবসাদ কাজ করে। কেননা এসময় শরীর তার প্রয়োজনীয় গ্লুকোজ পায় না। এর পাশাপাশি অতিরিক্ত প্রসাব দেখা যায়।

২। ত্বকে কালচে ভাব দেখা যায়: অ্যাকান্থসিস নিগ্রিকানস হলো ত্বকের এক ধরণের সমস্যা। যার কারণ ত্বকের উপরে পিচ্ছিল ভাব তৈরি হয় এবং সেখানে কালচে ভাব দেখা যায়। ত্বকের এই দাগ সাধারণত ঘাড়, কুনই, হাঁটুর ভাঁজে হয়ে থাকে। এই কালছে ভাব অনেক সময় ডায়াবেটিসের পূর্ব লক্ষণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।

৩। দৃষ্টিশক্তি অস্পষ্ট: ডায়াবেটিসের অরেকটি অন্যতম লক্ষণ হলো চোখে অস্পষ্ট দেখা। যদি চোখের কোন রোগ না থাকে তবে তা ডায়াবেটিসের কারণে এমনটি হয়েছে ধরে নিতে হবে। শরীরের ভিতরে তরলের মাত্রার তারতাম্যর কারণ এমনটি হয়। ফলে চোখে ঘোলা দেখা যায়। তবে চিকিৎসার মাধ্যমে শরীরে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা যায় তবে ঘোলাটে দেখা সমস্যা ঠিক হয়ে যায়।

৪। হাত-পয়ে অবশ ভাব: অনেক সময় হাতে-পায় অস্বস্তি, অবশ ও অস্বস্থিভাব দেখা দেওয়া ডায়াবেটিসের অন্যতম লক্ষণ প্রকাশ করে। রক্তে উচ্চ মাত্রার চিনির কারণ এমন সমস্যা তৈরি হয়। যারফলে হাতে-পায়ে এমন সমস্যা দেখা যায়।

৫। ক্ষতস্থান সারতে চায় না: শরীরের যে কোন স্থানে কাঁটা গেলে কিংবা ছাল গেলে তা সহজে সারতে চায় না। এটিও রক্তে উচ্চমাত্রার সুগার উপস্থিত এর কারণে হয়ে থাকে। ফলে শরীর রক্ত সঞ্চালনেও বাঁধা দেয়। ক্ষতস্থান স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে সারতে বেশি সময় নিলে দ্রুত ডাক্তার দেখানো উচিৎ।

Check Also

এই 2 টি ফল ভুলেও একসাথে খাবেন না! সন্তান হিজড়া হয়ে জন্মাবে

এই দুটি ফল ভুলেও একসাথে খাবেন না! সন্তান হিজড়া হয়ে জন্মাবে – হিজড়া কারা? সাধারণত ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
error: Content is protected !!