Tuesday , June 22 2021
Home / শিক্ষাঙ্গন / গ্রামে ছিলো না স্কুল, খুব ছোটতেই বাড়ি ছাড়তে হয়, ১৮ বছর পর বাড়ি ফিরল IAS অফিসার হয়ে

গ্রামে ছিলো না স্কুল, খুব ছোটতেই বাড়ি ছাড়তে হয়, ১৮ বছর পর বাড়ি ফিরল IAS অফিসার হয়ে

গ্রামে স্কুল ছিলো না, খুব ছোটতেই বাড়ি ছাড়তে হয়, ১৮ বছর পর বাড়ি ফিরল IAS অফিসার হয়ে – এত বছর ধরে প্রায় প্রত্যেকবারই ইউপিএসসি পরীক্ষার ফলাফলে বিহার প্রথম স্থানে ছিল। তবে বিগত 1, 2 বছরে তা হয়নি। কয়েক দশক ধরে বিহারকে ভারতের সেই

রাজ্যগুলির মধ্যে ধরা হতো যে দেশকে সবচেয়ে বেশি আইএএস অফিসার দিয়ে এসেছে। আশ্চর্যের বিষয় হলো আর যদি আমরা বিহারের শিক্ষার কথা বলি তবে এর চেয়ে ভালো আর কোনো ব্যবস্থা নেই। বিহারের শিক্ষার কথা বললে, প্রতি বছর সেখানে বোর্ডের পরীক্ষায় নকল

করার সংবাদটি জাতীয় স্তরের শিরোনামে থাকে। বিহারে কীভাবে ভুয়ো টপার তৈরি হয় তার খবরও নিশ্চয়ই আপনি দেখেছেন। তবে অপর দিকে এখানেও অল্প বয়স্ক যুবক রয়েছেন, তারা যদি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হন দেশের সবচেয়ে কঠিন পরীক্ষা ইউপিএসসিতে উর্ত্তীন্ন হওয়ার জন্য। আজ

আমরা এমনই এক বিহারের যুবককে নিয়ে কথা বলতে চলেছি। যুবকের নাম সুমিত কুমার। তিনি বিহারের জামুই জেলার সিকান্দ্রা গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবা সুশাল ভানওয়াল, তিনি খুব দরিদ্র ছিলেন। সুমিতের বাবার শৈশব থেকেই স্বপ্ন ছিল যে ছেলে বড় কিছু করবে। সুমিত 2007

সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষা এবং 2009 সালে ইন্টার্ন পরীক্ষা চমৎকার নাম্বার পেয়ে পাস করেছিলেন। এর পরে, 2009 সালে, আইআইটি কানপুরে তাকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। এখান থেকে পাশ করার পর তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি ইউপিএসসি পরীক্ষা দেবেন। ইউপিএসসি পরীক্ষায়

2017 সালে পাস করেছিলেন তিনি। সুমিত কুমার 2017 সালেই ইউপিএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এই সময়ে তিনি 493 তম র‌্যাঙ্ক এসে ডিফেন্স ক্যাডার পেয়েছিলেন। এই পদে সুমিতের মন ভরেনি। সুমিত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আবার পরীক্ষা দেবেন। এর পরে, 2018 সালে, তিনি আবার ইউপিএসসি পরীক্ষা দেন। এবার তিনি দেশে 53 তম র‌্যাঙ্ক অর্জন করেছিলেন।।

About Moni Sen

Check Also

প্রথমে MBBS, তারপর কাশ্মীরের প্রথম মহিলা IPS, পরে IAS অফিসার! ইনি এখন মহিলাদের আদর্শ

প্রথমে MBBS, তারপর কাশ্মীরের প্রথম মহিলা IPS, পরে IAS অফিসার! ইনি এখন মহিলাদের আদর্শ

প্রথমে MBBS, তারপর কাশ্মীরের প্রথম মহিলা IPS, পরে IAS অফিসার! ইনি এখন মহিলাদের আদর্শ- আজ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *