Saturday , July 24 2021
Home / দেশ-বিদেশ / কলকাতায় একেবারে জলের দরে খাসির মাংস!

কলকাতায় একেবারে জলের দরে খাসির মাংস!

রাজ্যের অন্যান্য জায়গার চেয়ে অনেক কম দামে খাসির মাংস (Mutton) বিক্রি হচ্ছে এবং সেই মাংস কিনতে ভিড় হচ্ছে করোনা বিধি শিকেয় তুলে। রহস্যটা কোথায়, তা দেখতে সরেজমিনে পর্যবেক্ষণ। খাসির মাংস কী ভাবে এত কম দামে, ৫০০ টাকা কেজি দরে

মানিকতলার বাগমারি বাজারের ব্যবসায়ীরা বিক্রি করছেন, তা দেখতে সোমবার সকালে সেখানে ঢুঁ মারলেন কলকাতা পুরসভার ফুড সেফটি বিভাগের অফিসাররা। তাঁরা সংগ্রহ করলেন মাংসের নমুনা। ইতিমধ্যেই তা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে পরীক্ষার জন্য। বাগমারি বাজারে কলকাতা তথা রাজ্যের অন্যান্য জায়গার চেয়ে অনেক কম দামে খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে এবং সেই মাংস কিনতে ভিড় হচ্ছে করোনা বিধি শিকেয় তুলে,

সেই খবর সোমবার ‘এই সময়’-তে প্রকাশিত হয়। তার পরেই এ দিনের পুর অভিযান। এ দিন সব মিলিয়ে প্রায় ১০টি দোকান থেকে মাংসের নুমনা সংগ্রহ করা হয়েছে পুরসভার তরফে। ক্রেতাদের সঙ্গেও পুরসভার অফিসাররা কথা বলেছেন। এ দিন বেলা ১১টা নাগাদ বাগমারি বাজারে যান পুরসভার ফুড সেফটি বিভাগের প্রদীপ পাল, শিব ঠাকুর-সহ পাঁচ জন। কলকাতার কোথাও খাসির মাংসের দাম কেজি প্রতি ৬৮০ টাকা,

তো কোথাও সেই মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ টাকায়। সেখানে কী ভাবে বাগমারি বাজারে তাঁরা ৫০০ টাকায় খাসির মাংস বিক্রি করছেন, সে কথা বিক্রেতাদের কাছ থেকে জানতে চান পুর আধিকারিকরা। ব্যবসায়ীদের একাংশ জানান, তাঁরা পাইকারি দরে মাংস কেনেন, তা ছাড়া খাসির হাটও ওই তল্লাটের পাশে বসে। খাসি আনার পরিবহণ খরচ অনেক কম বা নেই বললেই চলে। সেই জন্য তাঁরা এতটা কম দামে খাসির মাংস

বিক্রি করতে পারছেন বলে ওই ব্যবসায়ীদের দাবি। তবে ঠিক কোথা থেকে বা কাদের কাছ থেকে তাঁরা খাসি কেনেন, শেষ কবে খাসি কিনেছেন, এই সব প্রশ্ন করার পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের কাছে রসিদ চান পুরকর্তারা। দেখতে চাওয়া হয় ট্রেড লাইসেন্সও। প্রকাশ্যে খাসি কাটা অপরাধ, সেখানে কেন তাঁরা এমনটা করছেন, সেই প্রশ্নও দোকানিদের করেন পুরসভার ফুড সেফটি বিভাগের কর্তারা। তাঁরা সাফ জানান,

কোনও ভাবেই প্রকাশ্যে মাংস কাটা বরদাস্ত করা হবে না। তাতে অবশ্য দোকানিরা নিয়ম মেনে চলার প্রতিশ্রুতি দেন।পুরসভার ফুড সেফটি বিভাগের এক কর্তা এ দিনের অভিযান প্রসঙ্গে বলেন, ‘নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ঠিক কী মাংস বিক্রি হচ্ছে, মাংসের গুণগত মান ঠিক কি না, রিপোর্ট এলে সে সব জানা যাবে।’ ততদিন অবশ্য নিয়ম মেনে বাগমারি বাজারে মাংস বিক্রেতাদের ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে

পুরসভা।কলকাতা পুরসভার ৩ নম্বর বরোর কোঅর্ডিনেটর অনিন্দ্য রাউত বলছেন, ‘পুরসভার ফুড সেফটি বিভাগকে বিষয়টি জানিয়েছিলাম। তাঁরা এসে নমুনা সংগ্রহ করেছেন। রিপোর্ট আসার পর সেই মতো পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।’ তাঁর সাফ কথা, ‘সাধারণ মানুষকে ঠকিয়ে কেউ মুনাফা লাভের পথে গেলে তা বরদাস্ত করা হবে না।’

Check Also

৮৫ বছরের বৃদ্ধা নারী বয়ফেন্ড খুঁজছেন ৩৫বছরের

৮৫ বছরের বৃদ্ধা নারী বয়ফেন্ড খুঁজছেন ৩৫বছরের!

৮৫ বছরের বৃদ্ধা নারী বয়ফেন্ড খুঁজছেন ৩৫বছরের !- সঙ্গীর সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে চান। তাই ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *