Home / সংবাদ / এই পুলিশ কর্মী ২ কিলোমিটার সাঁতরে জীবন বাঁচাল শিশুর

এই পুলিশ কর্মী ২ কিলোমিটার সাঁতরে জীবন বাঁচাল শিশুর

কয়েক দিন হতে টানা বষর্ণে ভারতে অনেক রাজ্য তলিয়ে গেছে। এই টানা বর্ষণে ভারতে গুজরাট রাজ্যের ভদোদারা এর বেশ কিছু আঞ্চল ডুবে যায়। বন্যার কারণে বাড়ি ছাড়া হয়েছে অনেক পরিবার। স্থানীয় লোকজনদের উদ্ধারে নেমেছে প্রশাসন। এর মধ্যে রয়েছে পুলিশের একজন সাব ইন্সপেক্টর। যিনি গলা পানি পর্যন্ত ডুবে প্রায় ২ কিলোমিটার সাঁতরে উদ্ধার করেন এক শিশুকে।

পুলিশ ইন্সপেক্টরের এই ছবিটি সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবির সাথে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। তাতে দেখা যায় গভীর পানিতে নেমে এক শিশুকে গামলায় বসিয়ে মাথায় করে সাঁতরে নিয়ে আসছে। প্রায় ২ কিলোমিটার সাঁতরে নিয়ে আসেন শিশুটিকে। তবে শুধু শিশুটিই নয়; তার মাকেও উদ্ধার করেন সাব ইন্সপেক্টর গোবিন্দ। ইন্সপেক্টর গোবিন্দ এর প্রশংসায় সবর নেটিজেনরা।

ইন্সপেক্টর গোবিন্দ জানান যে, ভাদোদররা দেবীপুর এর পরিস্থিতি সামাল দিতে গত বৃহস্পতিবার সেখানে পৌঁছে তার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম। তারা সেখানে পৌঁছানোর পর জানতে পারেন যে ১.৫ বছর বয়সী এক শিশু ও তার মা বাড়িতে আটকা পড়েছে। তীব্র স্রোতের কারণে তারা সেখন হতে বের হতে পারছে না।

শিশুটির মাকে উদ্ধার করা সম্ভব হলেও শিশুটিকে উদ্ধার করা এত সোজা ছিল না। প্রথমে গোবিন্দসহ দুজন পুলিশ কর্মী নেমে যান তাদের উদ্ধার করতে। এরপর শিশুটির মায়ের নিকট হতে একটি গামলা চেয়ে নেয়ে এর পরি ইন্সপেক্টর গোবিন্দ নিজেই শিশুটিকে গামালাতে বসিয়ে মাথায় করে সাঁতরে প্রায় ২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে শিশুটিকে নিয়ে চলে আসেন সফলতার সাথে।

গোবিন্দ আরও জানান, এত পরিমাণ পানির মধ্যে শিশুটিকে অন্য কারো হাতে তুলে দিতে ভরসা পাচ্ছিলাম না তাই নিজেই সাহস করে এগিয়ে যাই। সেখানকার বাসিন্দরা গোবিন্দ এর উপস্থিত বুদ্ধিতে পঞ্চমুখ। গ্রামবাসিরা জানান, পানির তীব্র স্রোতের কারণে তারা পোলের সাথে দড়ি বেঁধে দিয়ে উদ্ধার কাজ চালয় খুবই দক্ষতার সাথে।

About By Moni Sen

Check Also

৫০ বছর বয়সেও বিয়ে করেননি

৫০ বছর বয়সেও বিয়ে করেননি, প্রে’মিকার চিঠি ও ছবি পকেটে নিয়ে পার করছেন জীবন

৫০ বছর বয়সেও বিয়ে করেননি, প্রে’মিকার চিঠি ও ছবি পকেটে নিয়ে পার করছেন জীবন – ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x